দূষণমুক্ত পৃথিবী” বার্তা নিয়ে সাইকেলে তেপান্তের পথে মুর্শিদাবাদের জোজো লাদাখে



জৈদুল সেখ, লালগোলা:‘দূষণ মুক্ত পৃথিবী’ গড়ে তোলার ডাক দিয়ে সাইকেল চেপেই এক মাস আগেই ভারত ভ্রমনে পাড়ি দিয়েছিল মুর্শিদাবাদ সীমান্তের লালগোলার সদ্য কলেজ উত্তীর্ণ পড়ুয়া জোজো কুমার ওরফে প্রসেনজিৎ দাস। খুব ছোট বেলা থেকেই সাইকেল নিয়ে স্বপ্ন বুনত প্রসেনজিৎ দাস, যাকে এলাকার মানুষ জোজো কুমার অর্থাৎ ‘সাইকেলম্যান’ হিসেবেই বেশি চেনেন।
সাইকেল নিয়ে ঘোরাফেরা করাই নেশা। তবে এখনও সে অর্থে কোনও পেশা বেছে নেননি। যদিও সাইকেলে সওয়ার হয়ে আগেও বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন স্থানে বেশ কয়েকটি অভিযানে গিয়েছেন বাইশ বছরের জোজো। তাতে চেপেই এবার লক্ষ্য ছিল লাদাখ। মুর্শিদাবাদের লালগোলা থেকে সাইকেলে চেপে সেই লাদাখেই পৌঁছে গিয়েছেন জোজো কুমার।
উল্লেখ্য ২৩ অগষ্ট সকালে লালগোলা থেকে সাইকেলে চেপে রওনা দিয়েছিলেন জোজো। ২৮ সেপ্টেম্বর পৌঁছে যান লেহ্‌ জেলার খারদুং লা-য়। এই মুহূর্তে লাদাখে রয়েছেন। লাদাখ-অভিযানে একা বেরলেও পথে শিলিগুড়ির দু’জন বাসিন্দাকে সঙ্গী হিসেবে পেয়ে গিয়েছেন জোজো। লালগোলা থেকে প্রায় তিন হাজার কিলোমিটার পথ পেরিয়েছেন। প্রবল ঠান্ডা বা দুর্গম পথ কোনও কিছুই জোজোর সংকল্পে বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারেনি বলে জানিয়েছেন।
‘তেপান্তরের পথে’ নাম দিয়ে জোজো এবার ‘ভারত ভ্রমনে’। জানা গিয়েছে, জঙ্গিপুর হয়ে মুরারই তারপর ঝাড়খন্ড হয়ে বিহার, উত্তর প্রদেশ, উত্তরাখন্ড পাড়ি দিয়ে বর্তমানে জোজ লাদাখে। এর পরেও কাশ্মীর,পঞ্জাব, হরিয়ানা হয়ে গোট দেশ ঘুরবে বলে রোগা পাতলা চেহারার যুবক জোজো সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছেন।
জোজোর এই অভিযানের আরও লক্ষ্য রয়েছে। তিনি বলেন, ‘‘ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে দূষণমুক্ত পরিবেশ গড়ে তোলার বার্তা দেওয়া, জলের অপচয় বন্ধ করা বা বৃক্ষরোপণের বিষয়ে সচেতন করতেই আমার লাদাখ-অভিযান।’’ খারদুং লা পৌঁছনোর অনুভূতিতে এখনও আচ্ছন্ন জোজো। তাঁর কথায়, ‘‘সমতল থেকে ১৫ হাজার ৩০০ ফুট উপরে পৌঁছেছি। এ এক বিস্ময়কর অনুভূতি!’’

error: