‘বাংলা পক্ষ’ এর দীর্ঘ আন্দোলনের পর বাংলার রেল টিকিটে ফিরল বাংলা ভাষা



বি.বি নিউজ ৩৬৫ ব্যুরোঃ বাংলা বাঙালির আবেগ! তাই বাঙালিদের বাংলা চাই। তবে হিন্দি এবং ইংরেজি ভাষার দাপটে পিছিয়ে দেওয়া হচ্ছিল বাংলা ভাষাকে। বাংলা ভাষার জন্য বহুদিন ধরে বহু ক্ষেত্রে লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে ‘বাংলা পক্ষ’। তাদের দাবি বাংলা ভাষাকে গুরুত্ব দিতে হবে। বঙ্গে চলবে বাংলা, পরীক্ষা ক্ষেত্র থেকে কাজ কর্ম, কর্মী এমনকি যাত্রী সুবিধার্থে টিকিতেও রাখতে হবে বাংলা ভাষা।

২ বছর আগে বাংলা পক্ষর আন্দোলনে পূর্ব রেল জানিয়েছিল বাংলার সব রেল স্টেশনের টিকিটে,যে স্টেশন থেকে টিকিট কাটা হচ্ছে তার নাম, গন্তব্য স্টেশনের নাম ও কোন ধরণের টিকিট তা বাংলায় লেখা হবে। কিন্তু পূর্বরেল প্রতিশ্রুতি দিয়েও সে প্রতিশ্রুতি ভঙ্গ করে। বাংলায় লেখা চালু করলেও বেশ কিছু স্টেশন থেকে কাটা টিকিটে বাংলা থাকছিল না। আবার একই স্টেশনের কয়েকটি কম্পিউটারে বাংলা থাকছিল তো আবার কয়েকটিতে তা থাকছিল না।

সে কারণে, সব টিকিটেই বাংলা রাখতে হবে এ নিয়ে পুনরায় আন্দোলন শুরু করেছিল বাংলা পক্ষ। যা এবার সফল হল। এখন থেকে সব স্টেশনের টিকিটেই বাংলায় লেখা থাকবে স্টেশনের নাম, গন্তব্য স্টেশনের নাম। যার ফলে আর অসুবিধায় পড়তে হবে না নিত্যযাত্রীদের। যারা শুধুমাত্র বাংলা ভাষাই জানেন, তাদের হেনস্থা হতে হবে না অবাঙালি রেল কর্মীদের হাতে। তাই বাংলা পক্ষের এই সাফল্য বাঙালির গর্বের মুহূর্ত।

বাংলা পক্ষর উত্তর চব্বিশ পরগনা শিল্পাঞ্চলের জেলা শাখা এই আন্দোলন শুরু করেছিল। তারা নৈহাটী স্টেশনে ডেপুটেশন দেয়। এই আন্দোলনের নেতৃত্বে ছিলেন জেলা সম্পাদক ইমতিয়াজ আহমেদ এবং নৈহাটী বিধানসভার সম্পাদক বিশ্বনাথ সাহা। অবশেষে সফল আন্দোলনের ফল স্বরূপ নৈহাটী স্টেশন থেকে কাটা টিকিটে বাংলা এল। এ জন্য ‘বাংলা পক্ষ’ রেল -কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানিয়েছে।

তাদের আরও দাবি রয়েছে রেলের কাছে। যেমন – আর পি এফ, স্টেশন মাস্টার সহ বাংলায় কাজ করা সমস্ত রেলকর্মীকে বাংলা জানতে হবে। বাংলায় রেলের চাকরিতে কমপক্ষে ৮৬% আসন বাঙালির জন্য সংরক্ষণ করতে হবে ইত্যাদি। এর আগেও তারা বেশ কিছু আন্দোলনে সফল হয়েছে। মাত্র কয়েক মাস আগেই বাংলা পক্ষ প্রায় ৩ বছরের আন্দোলন করার ফল স্বরূপ বাংলার বিদ্যুৎ বণ্টন দফতরের (WBSEDCL) পরীক্ষা বাংলা ভাষায় নেওয়া হয়। বাংলা পক্ষের দাবি মেনে নিয়োগ পদ্ধতিতে বাংলা ভাষাকে যুক্ত করা হয়েছে।

error: