ভবানীপুরে আগে দু’বার জিতেছি, এ বারে হ্যাটট্রিক হবে: মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়



বি.বি নিউজ ওয়েবডেস্ক: ভবানীপুর উপনির্বাচনের শেষ ধাপের প্রচারে রবিবার একাধিক সভা করলেন তৃণমূল প্রার্থী এবং মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এই কেন্দ্র থেকে তৃতীয় বার জয়ের ব্যাপারে আত্মবিশ্বাসের সুর তাঁর বক্তৃতায়। ৭৩ নম্বর ব্লকের নির্বাচনী প্রচারে তিনি বলেন, “এখানকার প্রত্যেকটা পাড়া আমি চিনি, কারণ প্রত্যেকটা পাড়াতেই আমি যাই। ভবানীপুরে আগে দু’বার জিতেছি, এ বারে তিন বার হবে”।

মমতা বলেন, “এটা আমার পাড়া। আমি ভবানীপুরের পাড়ার মেয়ে, ঘরের মেয়ে। ছোট্টো থেকে স্কুল, স্কুল থেকে কলেজ, কলেজ থেকে ইউনিভার্সিটি, ইউনিভার্সিটি থেকে রাজনীতি, আমার সব কিছুই এখানে। এই কালীমন্দির, পারসি মন্দির, জৈন মন্দির, শিব মন্দির, বড়োঠাকুরতলা, ও দিকে শীতলা মন্দির, বিভিন্ন পুজো- আমি এলাকাটা এত ভালো ভাবেই চিনি তার কারণ আপনারা আমাকে চিনিয়েছেন। আপনারা আমাকে ছ’বার লোকসভায় জিতিয়েছেন, আগে দু’বার এখান থেকেই বিধানসভায় জিতেছি, এ বারে আমার তিন বার হবে, অর্থাৎ ন’বার হয়ে যাবে। এ ছাড়া যাদবপুর থেকেও এক বার জিতেছিলাম। সব মিলিয়ে ১০ বার হয়ে যাবে”।

রাজ্য সরকারের বিভিন্ন প্রকল্পের কথা উল্লেখ করে মমতা বলেন, “কন্যাসন্তানদের শিক্ষায় নজর দিতে বলেছিলেন বিদ্যাসাগর। আজ তাঁর জন্মদিন। মেয়েদের জন্য আমরা কন্যাশ্রী চালু করেছি। তাঁরা আজকে উচ্চশিক্ষা পাচ্ছে। ধর্ম নির্বিশেষে কন্যাশ্রী প্রকল্পের সুবিধা পায় সবাই। অনলাইন পড়াশোনার জন্য সাড়ে ১২ লক্ষ ছেলে-মেয়েকে ট্যাব অথবা ফোন কেনার জন্য ১০ হাজার টাকা করে দিয়েছি”।

কথা দিয়ে কথা রাখার প্রসঙ্গে মমতা বলেন, “কথা দিয়ে কথা রাখাটা আমার কাজ। মনে রাখবেন, আমি যদি কথা দিই, মরে যাব, কিন্তু কথা থেকে সরব না। কারণ, আমরা আগেকার দিনের লোক, কথার দাম মেইনটেন করি। আমরা মূল্যবোধের রাজনীতি করি, আমরা বিবেকের রাজনীতি করি। আমি আবেগের রাজনীতি করি। অনেকে আগে আমাকে বলত, তোমার তো আবেগ বেশি। আমি বলি, আবেগ না থাকলে বিবেকের জন্ম হয় কোথা থেকে? অনেকে বলে, আমি মাথা নত করব না। আমি বলি, মাথা নত করব- সাধারণের কাছে। মাথা নীচু তারাই করতে পারে, যাদের মাথা উঁচু। আর যাদের মাথা উচু নয়, তারা মাথা নীচু করতে পারে না”।

error: