সমুদ্র তরঙ্গ থেকে বিদ্যুৎ তৈরির যন্ত্র আবিষ্কারঃ কেন্দ্রের থেকে বড় স্বীকৃতি পেলেন বিজ্ঞানী আব্দুস সামাদ



বি.বি নিউজ ডিজিটাল ডেস্কঃসমুদ্র তরঙ্গ থেকে প্রচুর বিদ্যুৎ উৎপাদন হতে পারে। দেশের মোট চাহিদার প্রায় ১৩ শতাংশ বিদ্যুৎ পাওয়া যেতে পারে সমুদ্র তরঙ্গ শক্তি থেকেই। এই শক্তি পুনর্নবীকরণযোগ্য ও পরিবেশবান্ধব। কিন্তু সঠিক প্রযুক্তি ও পরিকাঠামোর অভাবে তা ব্যবহারযোগ্য হয়ে উঠছেনা।

কিভাবে তার সহজসাধ্য হয়ে উঠতে পারে, নতুন কিছু আবিষ্কার করা যায় কিনা, তাই ঘুরপাক খাচ্ছিল আইআইটি মাদ্রাজের ওশান ইঞ্জিনিয়ারিং অর্থাৎ সমুদ্র প্রকৌশল বিভাগের অধ্যাপক ডক্টর আব্দুস সামাদের মাথায়।

এই ভাবনা থেকেই তিনি আবিষ্কার করেছেন বিশেষ যন্ত্র ও টারবাইন। তার গবেষণা আবিষ্কার যে মৌলিক তারই স্বীকৃতি দিল দেশের পেটেন্ট প্রদানকারী সংস্থা। সমুদ্র তরঙ্গ থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদনের যন্ত্র উদ্ভাবনের জন্য সম্প্রতি অধ্যাপক আব্দুস সামাদ পেয়েছেন দুটি পেটেন্ট। গত ২১ সেপ্টেম্বর তাকে ভারত সরকারের তরফে এই স্বীকৃতি প্রদান করা হয়েছে। প্রথম পেটেন্ট টি পেয়েছেন ‘পয়েন্ট অবজারভারের’ উপর, অন্যটি টারবাইন নিয়ে।

ডক্টর আব্দুস সামাদের জন্ম বীরভূমের মোহাম্মদ বাজার থানা শালুকা গ্রামে তিনি তার মাতামহের গ্রামের স্কুল থেকে মাধ্যমিক পাস করেন। বীরভূম জেলা স্কুল থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পাশ করে কলকাতার মাওলানা আজাদ কলেজে ভর্তি হন। বিএসসি পাশ করে চলে যান আলিগড় মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয়।

আলিগড় থেকে ২০০৪ সালে এমটেক শেষ করে শুধু একটা কাজের খোঁজে এখানে-ওখানে গিয়েছেন। এরই মধ্যে দক্ষিণ কোরিয়া থেকে পিএইচডি করার সুযোগ পান। ২০০৮ সালে তিনি পিএইচডি করেন। তারপর কোরিয়া ও ভারতেও চাকরি পান। পড়াশোনা অধ্যাপনার জন্য দেশ বিদেশে গিয়েছিলেন বহুবার।

অধ্যাপক ডঃ আব্দুস সামাদ ২০১০ সালে মাদ্রাজ ফিরে আসেন। যোগ দেন আইআইটি মাদ্রাজে। তিনি পেয়েছেন নামিদামি স্কলারশিপ। গবেষণার কাজ আরও এগিয়ে নিয়ে যেতে দেশের মধ্যে প্রথম আধুনিক অনন্য ল্যাবরেটরি স্থাপন করেন।

বীরভূমের প্রত্যন্ত গ্রামের কৃষক পরিবারের এই সন্তানের সাফল্যে আজ বাংলা গর্বিত। তিনি পিতা আব্দুস সালাম, তাঁর আম্মা, এক পুত্র এক কন্যাকে নিয়ে সস্ত্রীক মাদ্রাজে থাকেন।

তথ্যসূত্রঃ পুবের কলম

error: