লকডাউনে হারিয়েছে কাজ, কান্দিতে বাসের ছাদ থেকে উদ্ধার হকারের মৃত দেহ 



জৈদুল সেখ, কান্দিঃঃ লকডাউনে বন্ধ গণপরিবহন, ফলে দীর্ঘদিন ধরেই বাসস্ট্যান্ডে দাড়িয়ে আছে বাস। আর সেই দাড়িয়ে থাকা একটি বাসের ছাদ থেকে এক ব্যাক্তির মৃত দেহ উদ্ধার নিয়ে ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে এলাকা জুড়ে। ঘটনাটি মুর্শিদাবাদ জেলার কান্দি বাসষ্ট্যান্ড চত্বরে।

স্থানীয় বাসিন্দাদের সূত্রে জানা গেছে আজ সকাল থেকে নবকুমার নামে বছর বিয়াল্লিশের এক ব্যাক্তি কান্দি বাস স্ট্যান্ডের বাসের ছাদে অসাড় ভাবে পড়ে থাকতে দেখে প্রথমে তারা মনে করেন যে হয়তো ওই ব্যক্তি মদ্যপ অবস্থায় শুয়ে আছে, দুপুরে হালকা নড়াচড়াও করে কিন্তু বেলা গড়ালে রোদ বাড়তে থাকে ও পরে ব্যাপক বৃষ্ট হয় তখনও ওই ব্যাক্তির না ওঠাই সন্দেহ হলে স্থানীয় দোকানদাররা কান্দি পুলিশ থানায় খবর দিলে পুলিশ এসে ওই ব্যাক্তির ডাকে কিন্তু ততক্ষণে শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করে করেছে! পুলিশ বাসের ছাদ থেকে মৃতদেহ উদ্ধার করে কান্দি মহকুমা হসপিটালে ভর্তি করেছে ময়নাতদন্তের জন্য।
মৃত নবকুমার হালদারের ছেলে মাতিন হালদার জানিয়েছে বাবা হকারের কাজ করত কিন্তু লকডাইনের ফলে গত একমাস ধরে ঠিক মতো ব্যবস্থা চলতো না বলে বাড়িতে প্রায় মনমরা হয়ে থাকত খুব চিন্তা করত! আজ সকাল থেকেই খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না, আমরা মনে করেছিলাম হয়তো কোনো কাজে গিয়েছে কিন্তু বাবাকে এভাবে খুঁজে পাব …. তার পর চোখের জল মুছতে মুছতে মাটিতে বসে পড়ে।
স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছেন লকডাউনে কাজ হারিয়ে দীর্ঘদিন ধরেই অবসাদে ভুগছিল, মনে হয় সেখান থেকেই দূর্ঘটনা।
উল্লেখ্য এই ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে কান্দী এলাকায়, ব্যবসায়ী থেকে সাধারণত মানুষের মধ্যে শোকের ছায়া! ছেলের চোখের জল বলে দারিদ্রতার অবসাদ। পুলিশ নেমেছে তদন্তে, জানাবে মৃত্যুর রহস্য। কিন্তু প্রশ্ন থেকেই যাচ্ছে যারা দেখল বাসের ছাদে দীর্ঘক্ষণ পড়ে রয়েছে তখনও তো প্রাণ ছিল একবারও কী কাছে গিয়ে জিজ্ঞেস করা যেত না?

error: